মিস ইংল্যান্ড- ২০১৯’ প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন ভাষা মুখার্জি। ছবি: ইনস্টাগ্রাম থেকে নেওয়া‘মিস ইংল্যান্ড- ২০১৯’ প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এক তরুণী চিকিৎসক। কয়েক ডজন মডেলের সঙ্গে চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় তিনি শ্রেষ্ঠত্বের এই মুকুট অর্জন করেন।

‘মিস ইংল্যান্ড’ বিজয়ী ওই তরুণীর নাম ভাষা মুখার্জি (২৩)। তিনি ইংল্যান্ডের ডার্বি শহরে বসবাস করেন। চিকিৎসা শাস্ত্রে তাঁর আছে দুটি পৃথক ডিগ্রি। প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ‘মেধাবী’ উপাধি পাওয়া এই তরুণী পাঁচটি ভাষায় অনর্গল কথা বলতে পারেন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মিস ইংল্যান্ড-এর চূড়ান্ত পর্ব শেষ হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর ভাষা মুখার্জি বোস্টনে একটি হাসপাতালে জুনিয়র ডাক্তার হিসেবে চাকরি শুরু করেছেন।

চ্যাম্পিয়ন ভাষা মুখার্জি। ছবি: ইনস্টাগ্রাম থেকে নেওয়াচ্যাম্পিয়ন ভাষা মুখার্জি। ছবি: ইনস্টাগ্রাম থেকে নেওয়াপ্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার আগে ভাষা মুখার্জি বলেছিলেন, ‘কিছু মানুষ মনে করে সুন্দরী প্রতিযোগিতায় যাঁরা আসেন, তাঁরা নির্বোধ-বোকাসোকা হন। কিন্তু আমরা তা ভুল প্রমাণ করেছি।’ তিনি জানান, মেডিকেলে পড়ার মাঝামাঝি সময় থেকে তাঁর মডেলিং ক্যারিয়ার শুরু হয়েছিল।

ভাষা মুখার্জি ভারতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বয়স যখন নয় বছর, তখন তার পরিবার যুক্তরাজ্যে প্রবাসী হয়। এই তরুণী নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দুটি বিষয়ে ব্যাচেলর ডিগ্রি সম্পন্ন করেন। একটি চিকিৎসা বিজ্ঞান, অন্যটি মেডিসিন ও সার্জারি।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি


বাংলাদেশের প্রতিবেশী ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যেও ডেঙ্গু দেখা দিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে ডেঙ্গু ছড়ানোর পেছনে বাংলাদেশের মশার ভূমিকা থাকতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

গতকাল বৃহস্পতিবার এই মন্তব্য করেন মমতা। সংবাদমাধ্যমে বলা হয়, গতকাল মমতা ‘সবুজ বাঁচাও’ অভিযানের ডাক দিয়ে কলকাতার বিড়লা তারামণ্ডল থেকে নজরুল মঞ্চ পর্যন্ত পদযাত্রায় অংশ নেন। নজরুল মঞ্চে বক্তব্য দেওয়ার সময় ডেঙ্গু নিয়ে কথা বলেন তিনি।

বাংলাদেশে এখন ডেঙ্গুর প্রকোপ চলছে। ভারতের পশ্চিমবঙ্গেও ডেঙ্গু দেখা দিয়েছে। তবে বাংলাদেশের চেয়ে পশ্চিমবঙ্গে ডেঙ্গুর প্রকোপ কম।

নজরুল মঞ্চে মমতা বলেন, ‘বাংলাদেশে খুব ডেঙ্গু হচ্ছে। আমাদের বাড়তি সাবধানতা নিতে হবে। সীমান্ত এলাকায় মশা ওপার থেকে এপারে আসে। আবার এপার থেকে ওপারে যায়। দুই পারেই বহু মানুষ যাতায়াত করে। এ রাজ্যে ডেঙ্গু ছড়ানোর পেছনে বাংলাদেশের মশার ভূমিকা থাকতে পারে।’

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশে কিছু একটা হলে তার প্রভাব এখানে পড়ে। তাই সীমান্ত এলাকাগুলোতে ডেঙ্গু প্রতিরোধে আমাদের বিশেষ ব্যবস্থা নিতে হবে।’

মমতা জানান, ইতিমধ্যেই পশ্চিমবঙ্গে ৭০০ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ডেঙ্গু আক্রান্ত এলাকা উত্তর ২৪ পরগনার সীমান্তবর্তী হাবড়া।

সরকারি হিসাবে বলা হয়েছে, মোট ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর মধ্যে ৫০-৬০ শতাংশ রোগীই হাবড়ার। ডেঙ্গু প্রতিরোধের জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিয়েছে রাজ্য সরকার।

ডেঙ্গুর চিকিৎসা নিয়ে হাবড়া হাসপাতালে রোগী-চিকিৎসকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। পরে পুলিশ এসে তিনজনকে গ্রেপ্তার করে।

ঈদুল আজহার আগাম টিকিট বিক্রির পঞ্চম এবং শেষ দিনে গতকাল শুক্রবার ঘরমুখী মানুষের ভিড় আরও কম ছিল। ফলে গতকাল ১০টি আন্তনগর ট্রেনের প্রায় আড়াই হাজারের বেশি টিকিট অবিক্রিত থেকে যায়।


রেলওয়ে সূত্র জানায়, গতকাল বিক্রি হয়েছে ১১ আগস্ট যাত্রার আগাম টিকিট। চাহিদা কম থাকায় চট্টগ্রাম স্টেশনে কোলাহল তেমন ছিল না।

চট্টগ্রাম স্টেশন সূত্র জানায়, গতকাল ১০টি আন্তনগর ট্রেনের ৭ হাজার ১৮টির মধ্যে বিক্রি হয়েছে ৪ হাজার ৪৪২টি টিকিট। সবচেয়ে কম বিক্রি হয়েছে দেশের প্রথম দুটি বিরতিহীন আন্তনগর ট্রেন সুবর্ণ ও সোনার বাংলা এক্সপ্রেসের টিকিট। ঢাকাগামী সুবর্ণ এক্সপ্রেসের ৮৯৯ আসনের বিপরীতে গতকাল ১৫৬টি এবং সোনার বাংলার ৫৮২ আসনের বিপরীতে ৩৯টি টিকিট বিক্রি হয়। এই দুটি ট্রেনের টিকিট কাউন্টারে রয়ে গেছে।

গতকাল সবচেয়ে বেশি টিকিট বিক্রি হয়েছে ময়মনসিংহগামী বিজয় এক্সপ্রেসের। গতকাল ঘণ্টা তিনেকের মধ্যে ট্রেনটির ৬৭১টি টিকিট বিক্রি হয়ে যায়। এরপর চাহিদা ছিল ঢাকাগামী মহানগর এক্সপ্রেসের। ট্রেনটির ৭০৯ আসনের বিপরীতে গতকাল বিক্রি হয়েছে ৬৩৮টি টিকিট।

চট্টগ্রাম স্টেশনে টিকিট বিক্রি কমে যাওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের বিভাগীয় বাণিজ্যিক কর্মকর্তা মো. আনসার আলী প্রথম আলোকে বলেন, ঈদের আগে ঢাকা–চট্টগ্রাম মহাসড়ক যানচলাচলের জন্য আবার উপযোগী করে তোলা হয়েছে। যাত্রীরা সড়কপথ বেছে নিতে পারেন। এ ছাড়া ঈদের সময় ঢাকা ফাঁকা থাকে। তাই ঈদের আগের দিন ঢাকাগামী যাত্রী এমনিতে কমে যায়।

আনসার আলী বলেন, ১১ আগস্টের ঢাকাগামী সুবর্ণ ও সোনার বাংলার পর্যাপ্ত টিকিট কাউন্টারে আছে। আরও নয় দিন সময় আছে। ১১ আগস্টের সুবর্ণ ও সোনার বাংলার সব টিকিট বিক্রি হয়ে যেতে পারে।

এদিকে বৃষ্টিতে খানাখন্দে ভরে যাওয়া ঢাকা–চট্টগ্রাম মহাসড়ক মেরামত হয়েছে।

এ ছাড়া দ্বিতীয় মেঘনা, গোমতী ও কাঁচপুর সেতু চালু হয়ে গেছে। ফলে সাড়ে চার থেকে পাঁচ ঘণ্টায় ঢাকায় যাতায়াত করতে পারছেন যাত্রীরা। এ কারণে ট্রেনের ওপর নির্ভরতা কিছুটা কমেছে বলে রেল কর্মকর্তারা মনে করছেন।

ওয়্যারলেস রাউটার

 


মধ্যপ্রাচ্যে প্রথম ফাইভ–জি ওয়্যারলেস রাউটার উন্মোচন করল চীনা প্রযুক্তিপ্রতিষ্ঠান জেডটিই করপোরেশন। সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) টেলিযোগাযোগ ক্যারিয়ার ডিউয়ের সঙ্গে যৌথ অংশীদারত্বে প্রতিষ্ঠানটি তাদের ‘জেডটিই ফাইভ–জি ইনডোর রাউটার এমসি৮০১’ উন্মুক্ত করেছে।

অত্যাধুনিক ওয়াই-ফাই ৬ প্রযুক্তিতে (৮০২.১১ এএক্স) কাজ করবে জেডটিই ফাইভ-জি ইনডোর রাউটার, যা সর্বোচ্চ ১২৮ জন ওয়াই–ফাই ব্যবহারকারীকে একসঙ্গে ফাইভ–জি নেটওয়ার্ক ব্যবহারের সুযোগ করে দেবে। এ রাউটার থেকে ব্যবহারকারীরা নিরবচ্ছিন্ন নেটওয়ার্ক সুবিধা পাবেন। এতে ভিডিও বাফারিং অসুবিধা কমে আসবে। ধারাবাহিক এইচডি ভিডিও সেবা এবং শক্তিশালী নেটওয়ার্ক কানেকটিভিটি পাওয়া যাবে।

বিশেষ নকশার কারণে জেডটিই ফাইভ-জি ইনডোর রাউটার এমসি৮০১ আইএফ ডিজাইন অ্যাওয়ার্ড ২০১৯ অর্জন করেছে। গ্রাহকদের পাশাপাশি, যানবাহন, স্মার্ট গ্রিড ও ইন্টেলিজেন্ট ম্যানুফ্যাকচারিংয়ে ইন্টারনেটে ফাইভ–জি ব্যবহার এবং ইন্টারনেট অব থিংসের ব্যবহার বৃদ্ধিতে সুবিধা হবে।

গত জুনে জেডটিই প্রথম ফাইভ–জি ডিভাইস ‘জেডটিই অ্যাক্সন ১০ প্রো ফাইভ–জি’ উন্মোচন করে, যা মধ্যপ্রাচ্যের ক্রেতাদের জন্য প্রথম বাণিজ্যিক ফাইভ–জি স্মার্টফোন।

জেডটিই করপোরেশনের এসভিপি এবং মোবাইল ডিভাইস ডিভিশনের প্রেসিডেন্ট জু ফেং বলেন, ‘ফাইভ–জি বাণিজ্যিকীকরণের প্রচারণার ক্ষেত্রে জেডটিই অগ্রণী। এ ব্যাপারে আমরা আমাদের অ্যান্ড-টু-অ্যান্ড সলিউশন নিয়ে প্রস্তুত।’

এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে এ প্রযুক্তি নিয়ে আসার ব্যাপারেও আশার কথা শুনিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা।

স্মার্টফোন


চলতি বছরে বিশ্বজুড়ে স্মার্টফোন বিক্রি আড়াই শতাংশ কমতে পারে। বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান গার্টনার গতকাল বৃহস্পতিবার এ তথ্য প্রকাশ করেছে। গার্টনারের মতে, স্মার্টফোন বিক্রি কমার হার এটাই হবে সর্বোচ্চ।

গার্টনারের প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরে পিসি, ট্যাবলেট ও মোবাইল ফোন মিলিয়ে মোট ২২০ কোটি ডিভাইস বাজারে ছাড়া হবে, যা গত বছরের তুলনায় ৩ দশমিক ৩ শতাংশ কম। তবে ডিভাইসের বাজারে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা মোবাইল ফোন বাজারের। স্মার্ট ও ফিচার ফোন মিলিয়ে মোবাইল ফোনের বাজার দখল ৩ দশমিক ৮ শতাংশ কমে যেতে পারে।

গার্টনারের গবেষণা পরিচালক রঞ্জিত আতওয়াল বলেন, বর্তমান মোবাইল ফোন বাজারের শিপমেন্ট ১৭০ কোটি ইউনিট, যা ২০১৫ সালের তুলনায় ১০ শতাংশ কম। মোবাইল ফোনে যদি গুরুত্বপূর্ণ দরকারি ফিচার, অভিজ্ঞতা বাড়াতে সক্ষম এমন দক্ষতা যুক্ত না করা হয়, তবে মানুষ নতুন ফোন হালনাগাদ করে না। এতে ডিভাইসের আয়ুষ্কাল বেড়ে যায়। ২০১৮ সালে যেসব মোবাইল ফোনের ব্যবহার শুরু হয়েছে, তা ২০১৯ সাল জুড়ে থাকবে।
গার্টনার তাদের পূর্বাভাসে বলেছে, হাই এন্ডের স্মার্টফোনগুলোর আয়ু আড়াই বছর থেকে ২ বছর ৯ মাস পর্যন্ত দাঁড়িয়েছে। ২০২৩ সাল পর্যন্ত এ ধারা অব্যাহত থাকবে।

চলতি বছরের শুরুতে কয়েকটি মোবাইল অপারেটর ফাইভ–জি নেটওয়ার্ক সুবিধা যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ কোরিয়া, সুইজারল্যান্ড, ফিনল্যান্ড ও যুক্তরাজ্যের কিছু এলাকায় চালু করেছে। এ সেবা বিস্তৃত হতে আরও সময় লাগবে। ২০২০ সাল নাগাদ ৭ শতাংশ বৈশ্বিক যোগাযোগ সেবা বাণিজ্যিক ফাইভ-জি সেবার আওতায় আসতে পারে। আগামী বছর ফাইভ-জি–সমর্থিত স্মার্টফোন বিক্রি দাঁড়াবে ৬ শতাংশে। ফাইভ-জি সেবা বাড়তে থাকলে ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা বাড়বে ও ফোনের দাম কমবে। ২০২৩ সাল নাগাদ ৫১ শতাংশ ফাইভ-জি ফোন বিক্রি হবে।

যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যেকার বাণিজ্যযুদ্ধ ও চীনের ওপর সম্ভাব্য শুল্কারোপের হুমকি চলতি বছরে পিসির বাজারেও প্রভাব ফেলতে পারে।

স্যামসাং স্টোরে বাংলালিংকের সেবা উদ্বোধন।


দেশের স্যামসাং স্টোরগুলোতে বাংলালিংকের টেলিকম সেবা পাওয়া যাবে। সম্প্রতি স্যামসাং গ্রাহকদের অনুমোদিত স্যামসাং স্টোরে প্রতিষ্ঠানটির সব স্মার্টফোনের সঙ্গে প্রয়োজনীয় টেলিকম সেবা ও আকর্ষণীয় ডেটা অফার দিতে যৌথ উদ্যোগ নিয়েছে।

বাংলালিংকের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এখন স্যামসাং স্টোরে বাংলালিংকের প্রতিনিধিরা সিম, এয়ারটাইমসহ বিভিন্ন টেলিকম সেবা দেবেন। প্রাথমিকভাবে দেশের ৫১টি স্যামসাং স্টোরে বাংলালিংকের সুবিধা পাওয়া যাবে। পরে এ সেবা আরও বাড়ানো হবে।

সম্প্রতি রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিং মলে স্যামসাং স্টোরে বাংলালিংকের ডিভাইস বিভাগের প্রধান শাহরিয়ার আহমেদ ও প্রতিষ্ঠান দুটির কর্মকর্তারা এ সুবিধার উদ্বোধন করেন।

ঈদে ডোমেস্টিক ফ্লাইটে সব আকাশপথে ১৫ শতাংশ ছাড় দিচ্ছে অনলাইন টিকিট বিক্রির প্ল্যাটফর্ম বিডি ট্যুরিস্ট ডটকম। ঈদের ছুটিতে বিদেশগামী যাত্রীদের জন্য আন্তর্জাতিক পর্যায়েও ছাড়ের ঘোষণা দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। সম্প্রতি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

বিডি ট্যুরিস্ট ডটকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ঈদে বাস, ট্রেন, বিমানের টিকিট সহজে পাওয়া যায় না। গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা দিতে অভ্যন্তরীণ সব রুটে ১৫ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দেওয়া হচ্ছে। ঈদে ডোমেস্টিক ফ্লাইট বৃদ্ধি করে সব এয়ারলাইনস। ঈদুল আজহাতেও সরকারি-বেসরকারি এয়ারলাইনস সব মিলিয়ে প্রায় ২০০ অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট পরিচালনা করবে।

বিডি ট্যুরিস্ট ডটকমের প্রধান কার্যালয় মহাখালী ডিওএইচএস ও যমুনা ফিউচার পার্ক কার্যালয়ের পাশাপাশি অনলাইনে (bdtourist.com) টিকিট পাওয়া যাবে।

ফেসবুক


ভুয়া অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে সৌদি আরব থেকে ফেসবুক প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে অপপ্রচার চালানো হচ্ছিল। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে, সৌদি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা এ ধরনের অপপ্রচার চালাচ্ছেন বলে তারা ধরতে পেরেছে। এ ধরনের কার্যকলাপের সঙ্গে যুক্ত ৩০০ অ্যাকাউন্ট ও পেজ সরিয়ে ফেলেছে তারা। বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলছে, মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকার ফেসবুক ব্যবহারকারীদের লক্ষ্য করে আরবি ভাষায় নানা অপপ্রচার চালাচ্ছিলেন সৌদি সরকার–সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। চলতি সপ্তাহে ফেসবুক প্ল্যাটফর্ম ও ইনস্টাগ্রামে ‘সমন্বিত অসংলগ্ন আচরণের’ বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে তারা।

কোনো সরকারি কার্যক্রমের সঙ্গে ‘সমন্বিত অসংলগ্ন আচরণের’ বিষয়টি যুক্ত করে সবার সামনে তুলে ধরা ফেসবুকের মতো প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে সহজে চোখে পড়ে না।

সৌদি আরবের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করা হয়নি।

ফেসবুক বলেছে, সৌদি আরব থেকে অ্যাকাউন্ট ও পেজগুলো এমনভাবে তৈরি করা হয়েছিল, যাতে মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকার দেশগুলোর অ্যাকাউন্ট বা স্থানীয় গণমাধ্যমের মতো মনে হয়।
ফেসবুকে ভুয়া তথ্য ছড়ানো ঠেকাতে ব্যর্থতার অভিযোগে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ সমালোচনার মুখে পড়েছে।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলেছে, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও মিসর থেকে সৃষ্টি করা বেশ কিছু পেজ ও অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে তারা। এ অ্যাকাউন্টগুলো থেকেও সমন্বিতভাবে ভুয়া তথ্য ছড়ানো হচ্ছিল। তবে এগুলোর সঙ্গে সরকারের যোগসূত্র পায়নি তারা।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলেছে, যেসব পেজ বন্ধ করা হয়েছে, এসব পেজে অ্যাডমিনরা বিভিন্ন রাজনৈতিক বিষয়ে আরবিতে পোস্ট করতেন। এর মধ্যে যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ও তাঁর অর্থনৈতিক পরিকল্পনা, সৌদি সেনাবাহিনীর সাফল্য প্রচার করা হতো। এর বাইরে ইরান, কাতার, তুরস্কের মতো প্রতিবেশী দেশের সমালোচনা করে নানা পোস্ট দেওয়া হতো। এসব অ্যাকাউন্টের পেছনের ব্যক্তিরা পরিচয় আড়াল করার চেষ্টা করলেও ফেসবুক তাঁদের ধরতে পেরেছে। এসব পেজে ১৪ লাখের বেশি ফলোয়ার ছিল। এসব পেজ থেকে এক লাখ মার্কিন ডলারের বেশি বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছিল।