মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ – ছবি : সংগৃহীত

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ মন্ত্রণালয় ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এর ফলে আমেরিকায জারিফের যেকোনো সম্পদ বা প্রতিষ্ঠান জব্দ করা হতে পারে।
মার্কিন অর্থমন্ত্রী স্টিভেন মুচিন বলেন, জাভেদ জারিফ ইরানের সর্বোচ্চ নেতার (আয়াতুল্লাহ আলি খামেনির) বেপরোয়া বিভিন্ন এজেন্ডা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।
আর ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ তার ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা আরোপকে অর্থহীন কাজ বলে অভিহিত করেছেন। তিনি আজ (বৃহস্পতিবার) ভোরে তার ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞার প্রতিক্রিয়ায় নিজের অফিসিয়াল টুইটার পেজে দেয়া এক পোস্টে এ মন্তব্য করেন।

জারিফ বলেন, তিনি বিশ্বব্যাপী ইরানের প্রধান মুখপত্রের ভূমিকা পালন করার কারণে তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে আমেরিকা। ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রশ্ন করেন: ইরানের প্রধান মুখপত্রের ভূমিকা পালনের বিষয়টি আমেরিকার জন্য এতটা বিপজ্জনক হয়ে গেল?

তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের ব্যাপারে নিজের আগের এক বক্তব্যের পুনরাবৃত্তি করে মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ বলেন, এ নিষেধাজ্ঞায় তার বা তার পরিবারের কোনো ক্ষতি হবে না কারণ, ইরানের বাইরে তার কোনো সম্পদ বা স্বার্থ নেই।
পার্স টুডে জানায়, ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার টুইটার বার্তায় আরো বলেন, মার্কিন এজেন্ডা বাস্তবায়নের পথে তিনি মস্তবড় হুমকি হতে পেরে আনন্দবোধ করছেন। তিনি আমেরিকাকে উদ্দেশ করে বলেন, “আপনাদের এজেন্ডা বাস্তবায়নের পথে আমাকে হুমকি হিসেবে বিবেচনা করার জন্য ধন্যবাদ।”

মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার তেহরানের স্থানীয় সময় ভোররাতে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে নিষেধাজ্ঞার তালিকাভুক্ত করে। মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ সম্প্রতি নিউ ইয়র্ক সফরে গিয়ে কয়েকটি পশ্চিমা গণমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দেয়ার পর মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও উষ্মা প্রকাশ করেছিলেন।

২০১৫ সালে ইরানের সঙ্গে হওয়া পরমাণু চুক্তি থেকে গত বছর বেরিয়ে যায় যুক্তরাষ্ট্র। তারপর থেকেই দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

তবে সাম্প্রতিক সময়ের বেশ কিছু ঘটনার কারণে পারস্য উপসাগরেও উত্তেজনা শুরু হয়েছে। এর ফলে ওই অঞ্চলে সামরিক সংঘাত শুরু হতে পারে বলে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

হোয়াইট হাউসের নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন বুধবার এক বিবৃতিতে বলেন, এটা ৯০ দিনের একটি সংক্ষিপ্ত নিষেধাজ্ঞা।

ই-কমার্স সাইট ইভ্যালির সেবার পরিসর আরও বাড়তে পারে। প্রায় সাড়ে চার হাজার ধরনের এবং দুই লাখেরও বেশি পণ্য ও সেবা এখন পাওয়া যাচ্ছে প্ল্যাটফর্মটিতে। এতে প্রায় ১০ হাজার নিবন্ধিত ব্যবসায়ী যুক্ত হয়েছেন। ক্রেতাদের সুবিধার্থে সেবার পরিসর আরও বড় হচ্ছে মার্কেটপ্লেসটির।

২০১৮ সালের ১৬ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে দেশি ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম হিসেবে যাত্রা শুরু করে ইভ্যালি। নিজেদের কার্যক্রমের শুরু থেকেই পণ্যের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের সেবাকে অনলাইন প্ল্যাটফর্মে আনার পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে মার্কেটপ্লেসটি। এখান থেকে পাওয়া যায় ব্যাগ, জুতা, গয়না, পোশাক, ইলেকট্রিক্যাল এবং ইলেকট্রনিকস পণ্য, ইলেকট্রনিকস গ্যাজেটস, কসমেটিকস, খাদ্যপণ্যসহ নানা ধরনের পণ্য। এ ছাড়া আছে অবকাঠামো নির্মাণের জন্য সিমেন্ট, ইলেকট্রিক্যাল ফিটিংস এবং হার্ডওয়্যার পণ্য। ইতিমধ্যে ‘ক্যাশ ভাউচার’ দিয়ে ই-কমার্স গ্রাহকদের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে ইভ্যালি।

বিভিন্ন ধরনের সেবা হিসেবে আর্থিক এবং ব্যাংকিং, বিউটি কেয়ার, ক্যাটারিং, ডে-কেয়ার, আইটি, স্বাস্থ্যসেবা, ভ্রমণ ও ভিসা পরামর্শ এবং টিউশন সেবার মতো শতাধিক সেবা আছে প্ল্যাটফর্মটিতে।

ইভ্যালির উদ্যোক্তা এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রাসেল বলেন, ট্রান্সফর্মিং লাইফ টু ডিজিটাল লক্ষ্য নিয়ে ইভ্যালির যাত্রা শুরু। কেনাকাটার অভিজ্ঞতা ভার্চ্যুয়াল করতে কাজ করছে তাঁর প্রতিষ্ঠান। ইভ্যালিতে এখন মাসে প্রায় ১৬ থেকে ২০ কোটি টাকার আর্থিক লেনদেন হয়। প্রতিদিন এক হাজারের ওপর ফরমাশ জমা পড়ে। নতুন সেবা বাড়িয়ে অভিজ্ঞতা আরও উন্নত করা হবে।

https://evaly.com.bd/

স্যামসাং


বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে এসে মুনাফা কমে যাওয়ার খবর জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠান স্যামসাং ইলেকট্রনিকস। তাদের মূল আয়ের জায়গা চিপ ব্যবসা থেকে আয় কমেছে। বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মুনাফা কমে যাওয়াসহ সামনে অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে বলে সতর্ক করেছে স্যামসাং।

বিশ্বের বৃহত্তম স্মার্টফোন ও মেমোরি চিপ নির্মাতা স্যামসাংয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, গত বছরের তুলনায় এ বছর তাদের পরিচালন মুনাফা প্রায় ৫৬ শতাংশ কমেছে।

যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের বাণিজ্যযুদ্ধের কারণে স্মার্টফোনশিল্পের ধীরগতি এর অন্যতম কারণ হতে পারে। এ ছাড়া সিউল ও টোকিওর মধ্যেকার বাণিজ্যযুদ্ধের কারণেও স্যামসাংয়ের প্রবৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।

গত এপ্রিল থেকে জুন—তিন মাসে ৪৬০ কোটি মার্কিন ডলার পরিচালন মুনাফা করার কথা জানিয়েছে স্যামসাং। তারা আয়ের যে পূর্ব লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছিল, এটা তার কাছাকাছি।

স্যামসাং এক বিবৃতিতে বলেছে, মেমোরি চিপ বাজারের চাহিদা কিছুটা বাড়লেও বাজার দুর্বলতা ও চিপের দাম কমে যাওয়ায় তারা সমস্যায় পড়েছে। ব্যবসার ক্ষেত্রে অনিশ্চয়তা ছাড়াও বৈশ্বিক সামষ্টিক অর্থনৈতিক পরিবেশের পরিবর্তনের কারণে তাদের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হয়েছে।

স্যামসাং বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে ভাঁজ করার সুবিধাযুক্ত গ্যালাক্সি ফোল্ড স্মার্টফোনসহ নতুন স্মার্টফোন আনতে পারে। এর আগে স্ক্রিন ভেঙে যাওয়ার সমস্যা থাকায় গ্যালাক্সি ফোল্ড বাজারে আনতে পারেনি প্রতিষ্ঠানটি।

স্মার্টফোনের ডিসপ্লে ভেঙে যাওয়ার খবর স্যামসাংয়ের জন্য বিব্রতকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। এতে তাদের স্মার্টফোন বিক্রি কমে যায়। এ ছাড়া চীনা স্মার্টফোন নির্মাতা হুয়াওয়ের সঙ্গে তীব্র প্রতিযোগিতার মুখে পড়তে হয়েছে স্যামসাংকে।

গত সপ্তাহে স্যামসাং জানিয়েছে, স্মার্টফোন উন্নত করে আগামী সেপ্টেম্বরে গ্যালাক্সি ফোল্ড বাজারে ছাড়তে পারে তারা।

শেয়ার ট্রিপ লোগো


বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চমৎকার ভ্রমণ অভিজ্ঞতা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে যাত্রা শুরু করেছে ভ্রমণবিষয়ক অ্যাপ ‘শেয়ার ট্রিপ’। বিমানের টিকিট বুকিং থেকে শুরু করে হোটেল বুকিং, আনুমানিক খরচের তালিকা তৈরি, যাতায়াতের জন্য উপযুক্ত পরিবহনের ব্যবস্থা করাসহ সবকিছু করে দেবে শেয়ার ট্রিপ। সম্প্রতি রাজধানীর একটি হোটেলে অ্যাপটি উদ্বোধন করা হয়।

দেশের তরুণের তৈরি ‘শেয়ার ট্রিপ’ অ্যাপটি অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস প্ল্যাটফর্মে পাওয়া যাবে। লোকাল ক্রেডিট কার্ডে লেনদেনের মাধ্যমে অ্যাপটি ব্যবহার করা যাবে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, শেয়ার ট্রিপ অ্যাপে গেমিফিকেশন যুক্ত হয়েছে। ব্যবহারকারীরা স্পিন টু উইন খেলে জিতে নিতে পারেন ট্রিপ কয়েন, যা ট্রাভেল রিওয়ার্ড পয়েন্ট হিসেবে কাজে লাগানো যাবে। এ কয়েন তাঁরা ফ্লাইট, হোটেল, হলিডে বুকিংসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারবেন।

শেয়ার ট্রিপের প্রধান নির্বাহী কাশেফ রহমান বলেন, শেয়ার ট্রিপ ভ্রমণবিষয়ক সহজ অ্যাপ। বাংলাদেশের ভ্রমণপিপাসু মানুষের এটি কাজে লাগবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টারের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জিয়াউল আহসান, তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের স্টার্টআপ বাংলাদেশের ইনভেস্টমেন্ট পরামর্শক টিনা জাবীন, শেয়ার ট্রিপের পরিচালক তানভীর আলী প্রমুখ।