১৫দিনে ১বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স পাঠিয়ে নতুন রেকর্ড গড়লেন প্রবাসীরা

ক্যাটাগরি: অর্থ-বানিজ্য, প্রবাস, শিরোনাম, সর্বশেষ-সংবাদ

Posted: January 19, 2020 at 2:57 pm

১৫দিনে ১বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স পাঠিয়ে নতুন রেকর্ড গড়লেন প্রবাসীরা-Digital Khobor

১৫দিনে ১বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স পাঠিয়ে নতুন রেকর্ড গড়লেন প্রবাসীরা


নতুন রেকর্ড করেছে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্সে। নতুন বছরের প্রথম মাস জানুয়ারির প্রথম ১৫ দিনেই প্রায় ১ বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স প্রেরণ করেছেন প্রবাসীরা। সবমিলিয়ে ২০১৯-২০ অর্থবছরের সাড়ে ছয় মাসে (২০১৯ সালের ১ জুলাই থেকে ২০২০ সালের ১৫ জানুয়ারি) এক হাজার ৩০ কোটি (১০.৩৬ বিলিয়ন) ডলারের রেমিটেন্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা।
গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংক রেমিটেন্স প্রবাহের সাপ্তাহিক যে তথ্য প্রকাশ করেছে তাতে দেখা যায়, নতুন বছরের প্রথম মাস জানুয়ারির ১৫ তারিখ পর্যন্ত ৯৬ কোটি (প্রায় ১ বিলিয়ন) ডলার এসেছে বাংলাদেশে। এর আগে বাংলাদেশের ইতিহাসে দুই সপ্তাহে এত বেশি রেমিটেন্স আসেনি। অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) ৯৪০ কোটি ৩৪ লাখ (৯.৪ বিলিয়ন) ডলারের রেমিটেন্স এসেছিলো বাংলাদেশে। যা ছিল গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ২৫ দশমিক ৪৬ শতাংশ বেশি।

২০১৯ সালের শেষ মাস ডিসেম্বরে ১৬৮ কোটি ৭০ লাখ রেমিটেন্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। যা ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের চেয়ে প্রায় ৪০ শতাংশ বেশি।এক মাসের হিসাবে বাংলাদেশে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রেমিটেন্স এসেছে গত ডিসেম্বরে। এখন পর্যন্ত এক মাসে সর্বোচ্চ ১৭৪ কোটি ৮২ লাখ ডলার রেমিটেন্স পেয়েছে বাংলাদেশ; ২০১৯ সালের মে মাসে। আর রেমিটেন্স প্রবাহের এই ইতিবাচক ধারায় রপ্তানি আয়ে ধাক্কার পরও বিদেশী মুদ্রার রিজার্ভ সন্তোষজনক অবস্থায় রয়েছে। দুই শতাংশ হারে প্রণোদনার কারণেই রেমিটেন্স প্রবাহ বাড়ছে বলে মনে করছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম।

দেশের এক কোটিরও বেশি মানুষ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পাড়ি জমিয়েছেন। মাথার ঘাম পায়ে ফেলে প্রবাসীদের পাঠানো অর্থ বা রেমিটেন্স বাংলাদেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকাশক্তি। বাংলাদেশি অভিবাসীদের সংখ্যা দিনদিন বাড়ছে। ফলে দেশের বার্ষিক রেমিটেন্সের পরিমাণও উল্লেখযোগ্য-ভাবে বেড়ে চলেছে। প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্সে নতুন রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ। ২০২০ সালের প্রথম মাসের (জানুয়ারি) ১৫ দিনেই প্রায় ১ বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স এসেছে দেশে। আগে দেশের ইতিহাসে দুই সপ্তাহে এতো রেমিটেন্স আসেনি কখনো।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান-মন্ত্রী ইমরান আহমদ আশা করছেন ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষে রেমিটেন্সের পরিমাণ ২১ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাবে। মন্ত্রী বলেন, গত অর্থবছরে সাড়ে ১৬ বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স এসেছিল। প্রণোদনা দেওয়ায় এবার প্রবাহ খুবই ভালো। অর্থবছর শেষে রেমিটেন্স ২১ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাবে।

বর্তমানে এক কোটির বেশি বাংলাদেশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করছেন। জিডিপিতে তাদের পাঠানো অর্থের অবদান ১২ শতাংশের মত। রেমিটেন্স বাড়ায় বাংলাদেশ ব্যাংকের বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয়নও (রিজার্ভ) সন্তোষজনক অবস্থায় রয়েছে। জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়নের (আকু)আমদানি বিল পরিশোধের পর রিজার্ভ খানিকটা কমে এসেছিল। বৃহস্পতিবার দিন শেষে তা ফের ৩২ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে।

বিশিষ্টজনদের দাবী, প্রতিটা প্রবাসী অত্যন্ত কষ্ট করে পরিবারের কাছে টাকা পাঠাচ্ছেন। পরিবারের উচিত পাঠানো টাকা থেকে কিছু টাকা প্রবাসী মানুষটির জন্য সঞ্চয় করে রাখা। কারণ একটা সময় তিনি দেশে ফিরে আসবে। সে যেন সঞ্চিত সেই টাকা দিয়ে দেশে এসে কিছু করতে পারে। কারণ অনেক পরিবার আছে, যারা আগে ৫০০০ টাকায় সংসার চালাতো। কিন্তু বিদেশ থেকে টাকা পাঠানোর পর ২৫ হাজার টাকায়ও তাদের সংসার চলে না। চরম অপব্যয় করে। এটা আদৌ ঠিক নয়। এবং সরকারের উচিৎ দক্ষ শ্রমিক বিদেশে পাঠানো, তাহলে রেমিটেন্সের পরিমাণ আরও বৃদ্ধি পাবে। অপরদিকে এই প্রবাসী রেমিটেন্স যোদ্ধাদের জন্য বিদেশে নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতাবাস গুলোর সেবার মান আরও বৃদ্ধি করা উচিৎ বলে মনে করেন তারা।

 

ডিজিটাল ডেস্ক 

Mujib Borsho

ad

spellbitsoft

YOUTUBE-DIGITAL-KHOBOR

আর্কাইভ

February 2020
SSMTWTF
« Jan  
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
29 
%d bloggers like this: