ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত, ‘ন ডরাই’ চলচ্চিত্রের সেন্সর বাতিল

ক্যাটাগরি: আইন-আদালত, জাতীয়, ধর্ম ও জীবন, বিনোদন, শিরোনাম, সর্বশেষ-সংবাদ

Posted: December 5, 2019 at 12:29 pm

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত, ‘ন ডরাই’ চলচ্চিত্রের সেন্সর বাতিল-Digital Khobor

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগ তুলে ‘সার্ফিং’ নিয়ে দেশের প্রথম চলচ্চিত্র ‘ন ডরাই’-এর সেন্সর বাতিল ও প্রদর্শনী বন্ধে একটি আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে। আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, আইন মন্ত্রণালয় সচিব, ছবিটির প্রযোজক মাহবুব রহমান, পরিচালক তানিম রহমান অংশু ও চিত্রনাট্যকার শ্যামল সেনগুপ্ত বরাবর চলচ্চিত্রটি বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলা হয়েছে। বুধবার (৪ ডিসেম্বর) জনস্বার্থে রেজিস্ট্রি ডাকযোগে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. হুজ্জাতুল ইসলাম এ নোটিশ প্রেরণ করেন।

ভারতীয় লেখক শ্যামল সেনগুপ্তের চিত্রনাট্যে নির্মিত চরম অশ্লীল চলচ্চিত্র ‘ন ডরাই’ মুসলিম বাংলাদেশে মুক্তি পেয়েছে গত ২৯ নভেম্বর। ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্সের চেয়ারপার্সন মাহবুব রহমানের এই অশ্লীল চলচ্চিত্রটি পশ্চিমা নারী স্বাধীনতার কনসেপ্ট নিয়ে রচিত।

ছবিটির বিভিন্ন দৃশ্য এতটাই অশ্লীল যে, পশ্চিমা মানসিকতার দৈনিক পত্রিকা ‘প্রথম আলো’ পত্রিকাটিও লিখতে বাধ্য হয়েছে, চলচ্চিত্রটিতে ‘এমন সব দৃশ্য আছে, যেগুলো বাংলাদেশি সিনেমায় এই প্রথম। চলচ্চিত্রটি পরিবার নিয়ে দেখা যাবে, এমন নিশ্চয়তা দেয়া যায় না।’

নোটিশে বলা হয়েছে, এই চলচ্চিত্রে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর স্ত্রী হযরত আয়েশা (রা.) সম্পর্কে বর্ণনা তুলে ধরা হয়েছে। এছাড়াও চলচ্চিত্রের কিছু অংশ অশ্লীল ও অনৈতিক। তাই এসব বিষয়ে মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের অনুভূতিতে আঘাত সৃষ্টি করবে। চলচ্চিত্রটির প্রযোজক, পরিচালক এবং চিত্রনাট্যকার সস্তা প্রচারণার উদ্দেশ্যে ধর্মীয় উস্কানিমূলক পথ বেছে নিয়েছেন।

তাই নোটিশে চলচ্চিত্রটির সেন্সর ও প্রদর্শন বাজার থেকে প্রত্যাহার এবং সংশ্লিষ্টদের মুসলিম সমাজের কাছে ক্ষমা চাইতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। নাহলে ৭২ ঘণ্টা পর প্রয়োজনীয় আইনি পদক্ষেপ গ্রহণে আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার বিষয়টি নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে।

এদিকে এই নোংরা চলচ্চিত্রটির কেন্দ্রীয় চরিত্রের নাম ‘আয়েশা’ কেনো দেওয়া হলো, এ নিয়ে বাংলাদেশের মুসলিমদের মাঝে চরম ক্ষোভ দেখা যাচ্ছে। তাদের প্রশ্ন, শ্যামল সেনগুপ্ত-মাহবুব গং কেন তাদের স্ত্রী অথবা মেয়েদের নামে চলচ্চিত্র তৈরি করেননি? 

বাংলাদেশের সেন্সর বোর্ড কীভাবে এমন একটি অশ্লীল চলচ্চিত্রকে বিনা আপত্তিতে মুক্তিও দিয়ে দিল? ইচ্ছাকৃত-ভাবেই একটি অশালীন চরিত্রের জন্য ‘আয়েশা’ নামটি বেছে নিয়ে চলচ্চিত্র তৈরি করে ইসলাম ধর্মকে অসম্মানিত করেছেন বলে দাবী মুসলমানদের।

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় নির্মিত সার্ফিং নিয়ে দেশের প্রথম চলচ্চিত্র ‘ন ডরাই’। ছবিটির মূল চরিত্রের নাম আয়েশা। যিনি শত প্রতিকূলতা অতিক্রম করে সার্ফিং করেন। এতে আয়েশা চরিত্রে অভিনয় করেন সুনেরাহ্ বিনতে কামাল। মূলত এই নামটি নিয়েই আপত্তি তোলেন আইনজীবী মো. হুজ্জাতুল ইসলাম।

স্টার সিনেপ্লেক্স প্রযোজিত আলোচিত এই ছবিটি গত ২৯ নভেম্বর দেশের ৮টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায়। এদিকে এই আইনি নোটিশ প্রসঙ্গে এখনও কোনও মন্তব্য করতে রাজি নন সংশ্লিষ্ট প্রযোজক-পরিচালকরা।

 

ডিজিটাল খবর 

spellbitsoft

YOUTUBE-DIGITAL-KHOBOR

আর্কাইভ

January 2020
SSMTWTF
« Dec  
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031
%d bloggers like this: